ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ অগ্রহায়ন ১৪৩১, ১৬ মহররম ১৪৪৬

সোনারগাঁয়ে লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ১৩৪ তম তিরোধান উৎসব



সোনারগাঁয়ে লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ১৩৪ তম তিরোধান উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁও উপজেলায় শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ১৩৪ তম তিরোধান উৎসব শুরু হয়েছে। উপজেলার বারদীতে অবস্থিত শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর আশ্রমে লাখো ভক্তের সমাগম আর ব্যপক আয়োজনের মধ্য দিয়ে মানবহিতৈষী খ্যাত মহাযোগী পুরুষ শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর এই তিরোধান উৎসব পালিত হচ্ছে।  

তিরোধান উৎসবের মুল অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার বেশ কয়েকদিন আগ থেকেই পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপাল, ভুটান সহ বাংলাদেশের বিভিন্নস্থান থেকে থেকে আশ্রমে সমবেত হয়ে লোকনাথ ভক্তরা করছেন সকাল-সন্ধ্যা আরাধনা। তিরোধান উৎসবকে কেন্দ্র করে আশ্রম এলাকায় বসেছে সপ্তাহব্যাপী লোকজ মেলা। এই উৎসবের কারণে বারদী এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর আশ্রম কর্তৃপক্ষ ও লোকনাথ ভক্তরা জানান, মানবতাই মানুষের শ্রেষ্ঠ ধর্ম, এই ধর্মকে ব্রহ্মচারী নিজ বুকে লালন করে তার জন্মস্থান ভারতসহ বিভিন্ন দেশ ভ্রমনের পর দীর্ঘ ২৬ বছর সোনারগাঁও উপজেলার বারদীতে অবস্থানের করে ১৫০ বছর বয়সে ১৯ জ্যৈষ্ঠ এই মহা সাধক দেহ ত্যাগ করেন। সেই থেকে প্রতি বছর বাংলা মাসের ১৯ জ্যৈষ্ঠ লোকনাথ ব্রহ্মচারীর তিরোধান উৎসব পালিত হয়ে আসছে।

উপ মহাদেশের বিভিন স্থান থেকে ব্রহ্মচারীর ভক্তরা আসেন প্রণাম জানাতে। “ওঁ নমো ভগবতে লোকনাথায় নমো” বলে লোকনাথ ব্রহ্মচারীকে ভক্তি জানায় আগত ভক্তগণ। এই মহা সাধকের আশ্রমের জন্যই বারদী এখন মঙ্গলালোকে আলোকিত একটি গ্রাম। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নানান বয়সী মানুষের পাশাপাশি ভারত, নেপাল, ভুটানসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বিপুল সংখ্যক লোকনাথ ভক্ত বারদী আশ্রমে সমবেত হয়েছেন। দুর দুরান্ত থেকে আগতরা থাকছেন আশ্রমের বিশ্রামাগার গুলোতে।

তিরোধান উৎসব উপলক্ষে লোকনাথ ব্রহ্মচারী আশ্রম কর্তৃপক্ষ আয়োজন করেছে তিন দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার। এতে রয়েছে প্রভাত কীর্তন, গীতাপাঠ, লোকনাথ ব্রহ্মচারীর জীবন বৃত্তান্ত নিয়ে আলোচনা, বাল্যভোগ, রাজভোগ বিতরণ, ভক্তিমূলক গান, সন্ধ্যা আরতি, ফল প্রসাদ, জল প্রসাদ বিতরণসহ বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান। সরেজমিনে দেখা গেছে, উৎসব উপলক্ষে আগত লোকনাথ ভক্তরা সকাল সন্ধ্যা আরাধনা করছেন মনোষ্কামনা পূরণের আশায়।

আশ্রম ও এর আশপাশের এলাকা সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। আশ্রমের প্রধান ফটক ও যাত্রী নিবাসের ভবনগুলোতে নানা রকম আলোক সজ্জায় সজ্জিত করা হয়েছে। এই তিরোধান উৎসব উপলক্ষে আশ্রমের বাইরের মাঠে বসেছে সপ্তাহ ব্যপী গ্রামীন লোকজ মেলা। মেলায় কাঠ, বাঁশ, বেত, লৌহজাত পন্য, কসমেটিক্স ও খেলাধুলার সামগ্রীসহ হরেক প্রকারের পসরা সাজিয়ে বসেছেন বিভিন্ন দোকানীরা।

তাছাড়াও উৎসবে আগতদের জন্য বিনামূল্যে শিশুদের দুধ বিতরণ, ঔষধসহ চিকিৎসা সেবা, মিষ্টি, চিড়ামুড়ি, বাতাসা, পানি ও শরববত বিতরণের ব্যবস্থা নিয়েছে শ্রী শ্রী লোকনাথ সেবা সংঘ, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ, সীতা রাম সংঘ, শারদাঞ্জলি ফোরাম বাংলাদেশসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

এদিকে উৎসব ঘিরে নিরাপত্তার স্বার্থে আশ্রমের পুরো এলাকায় স্থাপন করা হয়েছে ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা। উৎসবে আগতদের নিরাপত্তা দিতে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ্ আল মাহফুজ।


   আরও সংবাদ